Untitled Document
বাংলাদেশের প্রথম ডাকটিকিট
- নিজাম বিশ্বাস
এখন ইন্টারনেটের যুগ। পৃথিবীর কোন প্রান্তে কিছু ঘটলে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই জেনে যাই। ১৯৭১ সালে ঠিক এমনটি ছিল না। তখনও যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম ডাক ব্যবস্থা, আর ডাকটিকিট সংগ্রহ করা ছিল বিশ্বব্যাপি তুমুল জনপ্রিয় শখ। ১৯৭১ সালের ২৯ জুলাই প্রকাশিত বাংলাদেশের আটটি ডাকটিকিট তখন সারাবিশ্বে আলোচনার ঝড় তোলে। স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্ব জনমত গড়তে টিকিটগুলো অসামান্য ভূমিকা পালন করে।

ব্রিটিশ মন্ত্রিসভার সদস্য জন স্টোনহাউসের সহায়তায় বিমান মল্লিকের নকশায় আটটি ডাকটিকিট সংবাদবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মুজিবনগর, কলকাতার বাংলাদেশ মিশন ও লন্ডন থেকে প্রকাশিত হয়। আটটি ডাকটিকিট লাগানো উদ্বোধনী খাম ব্রিটেনের
হাউস অব কমন্সে হাত উচিয়ে সবাইকে দেখানো হয় এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন ও অস্থায়ী বিপ্লবী সরকারকে স্বীকৃতির জোরালো দাবি উত্থাপন করেন বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী ও জন স্টোনহাউস। এরই পরিপেক্ষিতে পশ্চিম
জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, সুইজারল্যান্ড ও জাপানসহ বিশ্বের অনেক দেশ বাংলাদেশের পক্ষে চলে আসে।






ডাকটিকিট শুধুমাত্র একটুকরো রঙিন কাগজ নয়, বহিঃবিশ্বে এই টুকরো কাগজ একটি দেশের কুটনৈতিকের ভূমিকা পালন করে। যেমনটি করেছিল ১৯৭১ সালের ২৯ জুলাই প্রকাশিত বাংলাদেশের প্রথম ডাকটিকিট।
নিজাম বিশ্বাস এর অন্যান্য লেখাসমূহ
Copyright © Life Bangladesh সাপলুডু মূলপাতা | মন্তব্য Contact: shapludu@gmail.com